২০০৮ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় বাংলাদেশ দলের অন্যতম সেরা সফল ওপেনার ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েসের। ১২ বছর হয়ে গেল এখনও জাতীয় দলে নিয়মিত সদস্য হয়ে দাঁড়াতে পারেননি ইমরুল কায়েস। তবেই ১২ বছরে প্রতি বছরেই খেলেছেন তিনি। কিন্তু কখনো নিয়মিত হতে পারেননি তিনি। ১-২ ম্যাচ খারাপ খেললেই জাতীয় দল থেকে ছিটকে গিয়েছেন তিনি।

আর এই জন্য ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান। ১২ বছরে বাংলাদেশ জাতীয় দলের হয়ে ৩৯ টেস্ট, ৭৮ ওয়ানডে এবং ১৪ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন তিনি। ৭টি শতক ও ২০টি অর্ধশতক সহ ইমরুল কায়েসের আন্তর্জাতিক ৪৩৫২। তবে নিজেকে দুর্ভাগা বললেন ইমরুল কায়েস।

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি আড্ডায় ইমরুল কায়েস বলেন, “বাংলাদেশ দলে খেলাটাকে আমি সবসময় খুব সৌভাগ্যের মনে করি। খুব গর্বের একটা কাজ মনে করি। আমার কাছে মনে হয়, খেললে আমি হিরো হয়ে যাচ্ছি নাকি কোন অবস্থানে যাচ্ছি এটা বেশি গুরুত্ব দিই না।

যখন জাতীয় দলের জার্সি পরে মাঠে নামি তখন মনে হয় আমি আমার দেশকে প্রতিনিধিত্ব করছি। একটা খেলোয়াড়ের কাছে এর চেয়ে বড় চাওয়া আর কিছু হতে পারে না।”

“আমার হয়তো এই সময়ে ২০০ ম্যাচ হয়ে যেতে পারত, এদিক থেকে আমি একটু দুর্ভাগা। আমার ক্ষেত্রে হয় যে আমি যখন খারাপ খেলি সাথে সাথে বাদ পড়ে যাই। এই বাদ পড়ার পরে ফিরে আমাকে আবার অনেক প্রমাণ করে আসতে হয়। কিন্তু অনেকের ক্ষেত্রে এই জিনিসটা হয় না। কোনো না কোনো ভাবে সমর্থন পেয়ে তারা জাতীয় দলে থেকে যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here