সেলফি তুলতে গিয়ে একই পরিবারের ৪ জন নি'হত - OEBD | বিস্তারিত ভিতরে সেলফি তুলতে গিয়ে একই পরিবারের ৪ জন নি'হত - OEBD | বিস্তারিত ভিতরে

সেলফি তুলতে গিয়ে একই পরিবারের ৪ জন নি’হত

502

বর্তমান প্রজন্মের কাছে সেলফি একটি ট্রেন্ড। যেকোন পরিস্থিতে সেলফি তাদের তুলতেই হবে। বিভিন্ন বিপজ্জনক পরিস্থিতে বা বিপজ্জনক জায়গায় ঘুরতে যেয়ে সেখানে সেলফি তুলতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন এমন মানুষের সংখ্যা নেহাত কম নয়। তবে এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি এগিয়ে ভারতীয়রাই।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল লাইব্রেরি অব মেডিসিনের এক জরিপে দেখা গেছে, ২০১১ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত বিশ্বে সেলফি তুলতে গিয়ে ২৫৯টি প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। এর অর্ধেকের বেশিই হয়েছে ভারতে। এরপরেই আছে রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও পাকিস্তান।

এবার ভারতের দক্ষিণাঞ্চলের তামিলনাড়ু প্রদেশে সেলফি তুলতে গিয়ে একই পরিবারের চারজন নি’হত হয়েছেন। গত রোববার (৬ অক্টোবর) বেড়াতে যেয়ে বাঁধের পানিতে নেমে সেলফি তুলতে গিয়ে পানিতে পড়ে প্রাণ হারিয়েছেন তারা। সোমবার (৭ অক্টোবর) ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানায়, রাজ্যের কৃষ্ণগিরির এক নববিবাহিত দম্পতি পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বেড়াতে গিয়েছিলেন পমবার বাঁধ এলাকায়। সঙ্গে ছিলেন বরের বোন ও নববধূর পরিবারের আরও তিন ভাই-বোন।

সবাই হাত ধরাধরি করে কোমরপানিতে নেমে সেলফি তুলছিলেন। আচমকা পা পিছলে পড়ে যায় ১৪ বছর বয়সী ভাই। তার টানে পানিতে ভেসে যান বাকিরাও। পানি থেকে স্বামী ও তার বোন কোনোমতে উঠতে পারলেও তলিয়ে যান স্ত্রী এবং তার তিন ভাই-বোন। পুলিশ জানায়, মরদেহগুলো উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।

আবরার ফাহাদ হটত্যায় দায় ছাত্রলীগের নয় : রাব্বানী

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালেয়ের (বুয়েট) ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পি’টিয়ে হ’ত্যায় দায় ছাত্রলীগের নয় বলে দাবি করেছেন সংগঠনটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী।

আবরার হ’ত্যাকা’ণ্ড নিয়ে সোমবার (৭ অক্টোবর) বিকেলে ফেসবুকে দেয়া স্ট্যাটাসে এ দাবি করেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে পদ হা’রানো গোলাম রাব্বানী।

স্ট্যাটাসটি সময় নিউজের পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধ’রা হলো :

‘‘দায়টা কোনভাবেই সংগঠনের নয়, সংগঠন তো শিক্ষা-শান্তি-প্রগতির মূলমন্ত্রে উজ্জীবিত হবার দীক্ষা দেয়; সত্য, সুন্দর, ইতিবাচকতা আর মানবিকতার জয়গান গাইতে শেখায়।

দায়টা ব্যক্তি বিশেষের। তবে পরিতাপের বিষয়, এক মন দুধে কয়েক ফোটা গো-মূত্রের ন্যায় গুটিকয়েক বিপথগামী, প্রতিক্রিয়াশীলদের অ’পকর্মের দায়ভার পুরো সংগঠনের উপরই বর্তায়।

ঘটনা যাই হোক, আইনের ছাত্র হিসেবে এটুকু বুঝি, মা’র্ডার ক্যান নট বি জাস্টিফাইড বাই এনি মিনস!

অ’প’রাধীর একটাই পরিচয়, সে অ’প’রাধী! সুষ্ঠু ত’দন্ত সাপেক্ষে আবরারের হ’ত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শা’স্তি দাবী করছি।’’




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *